বাংলায় পাইথন – কিছু দরকারী বিষয়

পাইথনে প্রোগ্রামিং করতে গেলে আপনাকে কিছু বিষয় সর্বদা মাথায় রাখলে সুবিধা হবে ।

ইন্টারএক্টিভ শেল
কমান্ড লাইনে পাইথন রান করালে পাইথনের ইন্টারএক্টিভ শেল চালু হয় । এখানে কোন এক্সপ্রেশন টাইপ করলে পাইথন সাথে সাথে সেটিকে এভ্যালুয়েট করে আউটপুট দেখাবে । কোন কিছু টেস্ট করে দেখা বা প্রোটোটাইপিং এর জন্যে খুবই কাজের জিনিস এটি।

type(), dir(), help() এর ব্যবহার

উপরের অংশ যদি মনযোগ দিয়ে লক্ষ্য করে থাকেন তাহলে দেখবেন type() ফাংশনটি কোন চলক বা নামের ধরন বা টাইপ বলে দেয় । যেমনঃ type(list) দিলে বোঝা গেল এটি একটি লিস্ট । type(list[0]) দিলে দেখা গেল এই লিস্টের প্রথম আইটেমের টাইপ ইন্টিজার ।

dir() কমান্ডটি কোন অবজেক্টের ইন্সপেকশনে ব্যবহার করা হয় । help() ফাংশনটি আমাদের কোন অবজেক্ট সমপর্কে সাহায্যকারী তথ্য সরবরাহ করবে ।

পাইথনে প্রোগ্রামিং ও ডিবাগিং এর ক্ষেত্রে এই ফাংশনগুলো অত্যন্ত কাজের । এগুলো পাইথনের গ্লোবাল নেইমস্পেসের অংশ । তাই এগুলো কোন মডিউল ইম্পোর্ট করা ছাড়াই ব্যবহার করা যায় ।

হোয়াইটস্পেসের ব্যবহার
পাইথনে ইন্ডেন্ট করা হয় হোয়াইটস্পেস ব্যবহার করে, তাই একই ব্লকের কোড এর স্পেসিং সমান হতে হবে, অন্যথায় সিন্ট্যাক্স এরর থ্রো করবে ইন্টারপ্রেটার । নবীনদের প্রথম প্রথম এটা নিয়ে সমস্যা হয় । পরবর্তীতে এটিই পাইথনের অন্যতম প্রিয় একটি ফিচার হয়ে যায় তাদের কাছে ।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *